Friday , January 19 2018
Home / স্বাস্থ্য / পুষ্টিগুণে ভরপুর লাউ

পুষ্টিগুণে ভরপুর লাউ

আমাদের দেশে লাউ একটি জনপ্রিয় সবজি। লাউ সাধারণত শীতকালীন সবজি হলেও এখন সারাবছরই পাওয়া যায়। লাউয়ের পাতা ও ডগা শাক হিসেবে এবং লাউ তরকারি ও ভাজি হিসেবে খাওয়া যায়। লাউয়ের চেয়ে এর শাক বেশি পুষ্টিকর। লাউ একই সঙ্গে সুস্বাদু এবং পুষ্টিকর একটি সবজি।

জেনে নিই লাউয়ের পুষ্টিগুণ ও উপকারিতাগুলো।

লাউয়ের উপাদান সমূহ:

প্রতি ১০০ গ্রাম লাউয়ে রয়েছে জলীয় অংশ ৯৬.১০ গ্রাম, আঁশ ০.৬ গ্রাম, খাদ্যশক্তি ১২ কিলোক্যালরি, প্রোটিন ০.২ গ্রাম, চর্বি ০.১ গ্রাম,শর্করা ২.৫ গ্রাম।

খনিজ উপাদানের মধ্যে ক্যালসিয়াম ২০.০ মিলিগ্রাম, আয়রন ০.৭ মিলিগ্রাম ছাড়াও সোডিয়াম, পটাশিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম, জিংক, ফসফরাস ও সেলেনিয়াম রয়েছে।

এ ছাড়াও লাউয়ে ভিটামিন এ, বি-কমপ্লেক্স, সি ছাড়াও ফলিক এসিড, ওমেগা-৬ ফ্যাটি এসিড আছে।

উপকারিতা:

– লাউয়ে প্রচুর পানি থাকে, যা দেহের পানির পরিমাণ ঠিক রাখতে সাহায্য করে। ডায়রিয়াজনিত পানিশূন্যতা দুর করতে সাহায্য করে।

– লাউ খেলে ত্বকের আর্দ্রতা ঠিক থাকে।

– প্রসাবের সংক্রমণজনিত সমস্যা দুর হয়। কিডনির কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি করে।

– কোষ্ঠকাঠিন্য, পাইলস, পেট ফাঁপা প্রতিরোধে সহায়ক।

– লাউ দেহের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। ইনসমনিয়া বা নিদ্রাহীনতা দূর করে পরিপূর্ণ ঘুমের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

– লাউয়ে রয়েছে ক্যালসিয়াম ও ফসফরাস, যা দেহের ঘামজনিত লবণের ঘাটতি দুর করে। দাঁত ও হাড়কে মজবুত করে।

– ক্যালরির পরিমাণ কম থাকায় ডায়াবেটিস রোগীদের জন্যও লাউ যথেষ্ট উপকারী। ডায়েটিংকালেও লাউ ভালো ফল দেয়।

– চুলের গোড়া শক্ত করে, ধূসর হয়ে যাওয়া প্রতিরোধ করে।

-নিয়মিত লাউয়ের জুস পান করলে ত্বকের ঔজ্জ্বল্য বৃদ্ধি পায় এবং ব্রণের হাত থেকে রক্ষা পাওয়া যায়।

-লাউয়ের ক্ষারীয় প্রকৃতির রস দেহে এসিডের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে খুবই কার্যকর।

-দেহের ওজন কমাতে লাউকে অন্যতম উপকারী খাদ্য হিসেবে গণ্য করা হয়।

 

Check Also

প্রতিদিন হলুদ-পানি পানের স্বাস্থ্য উপকারিতা

আমাদের দেহে বিভিন্নভাবে বিষাক্ত পর্দাথ প্রবেশ করে থাকে। যেমন- বায়ুর মাধ্যমে, খাবারের মাধ্যমে অথবা পানির …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *