Wednesday , March 28 2018
Home / রুপচর্চা / আপনার দাত কে সুন্দর করতে কিছু টিপস ?

আপনার দাত কে সুন্দর করতে কিছু টিপস ?

রমজান মাসে যত্ন নিন দাঁত ও মুখের
লাইফ স্টাইল ডেক্সঃ রমজানে খাদ্যাভ্যাসের পরিবর্তনের কারণে অনেকেই নিজেদের অসতর্কতার জন্য অসুস্থ হয়ে পরছেন। যার মধ্যে দাঁতের সমস্যা অন্যতম। যেহেতু রোজায় দীর্ঘপ্রায় ১৪/১৫ ঘণ্টা উপবাস থাকতে হয়, এ সময় পানি বা কোনো তরল পান করা যায় না। ফলে মুখ গহ্বর শুষ্ক থাকে এবং কুলি বা পানি পান না করার জন্য দাঁতের ফাঁকে ফাঁকে জমে থাকা খাদ্যাংশ ব্যাকটেরিয়া তৈরি ও জমে থাকতে সাহায্য করে। অনেকেই মনে করেন রোজা রেখে দাঁত পরিষ্কার করা যাবে না বা দাঁতে কোনো সমস্যা হলে তার চিকিৎসাকরা যাবে না, কিন্তু এটা সম্পূর্ন ভূল ধারণা। বর্তমান ইসলামী চিন্তাবিদদের মতে, রোজা রেখে দাঁত পরিষ্কার করা যাবে এবং দাঁতে কোনো ধরনের সমস্যা হলে তার চিকিৎসাও করানো যাবে। নিজের দাঁতগুলোকে সুস্থ ও সুন্দর রাখতে সেহরি ও ইফতারে চাই পর্যাপ্ত যত্ন। তাই রোজায় দাঁতের যত্নে কিছু বিষয়ে খেয়াল রাখা জরুরী।
সেহরিতে দাতের যত্ন : সেহরি খাওয়ার পর অবশ্যই দাঁত ভালো করে ব্রাশ করে পরিষ্কার করে নিবেন এবং মনে রাখবেন, দাঁত ব্রাশ করার পর অবশ্যই পানি ব্যতীত আর কিছু খাবেন বা পান করবেন না। দাঁত ব্রাশ করা শেষে দুই দাঁতের মাঝে আটকে থাকা খবার ফ্লসিং করে বের করে নিন। কেবল রমজান নয়, সব সময়েই দাঁত ফ্লস করার অভ্যাস আপনার জন্য ভালো। অযথা টুথপিক দিয়ে খোঁচাখুঁচি না করে ভালো মানের ডেন্টাল ফ্লস ব্যবহার করুন। এতে দাঁতের আনাচে কানাচে লুকিয়ে থাকা সব ময়লা দূর হবে সেহরীতে মিষ্টি জাতীয় যেকোনো খাবার পরিহার করুন। কোমল পানীয় ধরণের খাবার একদমই খাবেন না। যেহেতু পরদিন ইফতারের সময়ের আগে আর দাঁত মাজা হবে না, তাই দাঁত মাজার পর অবশ্যই মাউথ ওয়াশ ব্যবহার করে কুলি করুন। এতে আপনার নিঃশ্বাস হয়ে উঠবে সতেজ।
যদি সেহরির সময় ব্রাশ করতে মনে না থাকে তাহলে অবশ্যই সকালে ঘুম থেকে উঠে ব্রাশ পানিতে ভিজিয়ে দাঁত ব্রাশ করতে হবে। তবে টুথপেস্ট ব্যবহার না করাই ভালো, কারণ টুথপেস্ট দিয়ে দাঁত ব্রাশ করার সময় অসাবধানতাবশত পেস্ট যদি গলার ভেতরে ঢুকে যায় তাহলে সঙ্গে সঙ্গে রোজা ভেঙে যাবে। তাই টুথপেস্ট দিয়ে দাঁত ব্রাশ করা ঠিক নয়। তাছাড়া টুথপেস্ট ব্যবহার করার সময় টুথপেস্টের স্বাদ এমনিতেই গৃহীত হয়ে থাকে। আর কোনো কিছুর স্বাদ গ্রহণ করলে রোজা নষ্ট হয়ে যাবেনা। কিন্তু রোজা মাকরূহ হয়ে যাবে। এ ক্ষেত্রে নিম বা জয়তুনের ডাল দিয়ে মেসওয়াক করতে পারেন, এতেও দাঁত পরিস্কার থাকবে। যারা দাঁতের কোনো ইনফেকশনের জন্য অ্যান্টিবায়োটিক খাচ্ছেন, তারা সেহেরীতে ওষুধ খেতে ভুলবেন না। জিব পরিষ্কার করার আলাদা ব্রাশ (টাং ক্লিনার) পাওয়া যায়। সেটা দিয়ে আলতো করে জিব পরিষ্কার করে নিন। জিবে ময়লা থাকলে সেটা দাঁতের জন্য মোটেও ভালো নয়।
ইফতারিতে দাঁতের যত্ন : দাঁত ও মাড়ির সুস্থতায় ইফতারের সময় আঠালো ও মিষ্টি জাতীয় খাবার যেমন জিলাপি না খাওয়া ভালো। ইফতারের পর চা, সিগারেট কিংবা পান খাওয়া থেকে বিরত থাকুন। মনে রাখবেন, এ সবই দাঁতের জন্য খুব ক্ষতিকর। তাই যদি এসব খাবার খেয়েও ফেলেন তাহলে সঙ্গে সঙ্গে দাঁত ব্রাশ করে ফেলুন। রমজানে ইফতারের পরে এক বার ব্রাশ করে ফেললে ভালো। এবং সেহরির পরে একবার। এ দুবার ব্রাশ করতে হবে। এছাড়া প্রতি বার নামাযের আগে মেস ওয়াক করা হলে তা দাঁত ভালো রাখতে সাহায্য করবে।
এই রমজানে দাঁতের যত্ন নিন সুস্থ থাকুন এবং যেকোন সমস্যায় অবশ্যই রেজিস্টার্ড ডেন্টিস্টের পরামর্শ নিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *