Wednesday , March 28 2018
Home / রান্নাবান্না / চটজলদি বানিয়ে ফেলুন চালতার টক-ঝাল আচার

চটজলদি বানিয়ে ফেলুন চালতার টক-ঝাল আচার

বাঙালীর আচার-বিলাসের কথা বলে শেষ করা যাবে না। সব বয়সের সব মানুষেরই আচারের প্রতি একটু না একটু দুর্বলতা থাকে। খুব কম সময়ে পাওয়া ফল চালতার আচার অনেকেরই পছন্দ। তবে এটা যেহেতু বেশিদিন বাজারে থাকে না, তাই এর জন্য সারা বছর অপেক্ষা করতে হয়। আমরা সাধারণত চালতার যে আচার তৈরি করি তা বেশিদিন সংরক্ষণ করা যায় না। আজ জেনে নিন এমন একটি চালতার আচারের রেসিপি যা ছয় মাস পর্যন্ত সংরক্ষণ করে খাওয়া যাবে।

উপকরণ

৪০০ গ্রাম চালতা

৪টা আস্ত শুকনো মরিচ

দেড় টেবিল চামচ পাঁচফোড়ন

৫/৬ কোয়া রসুন

একটা তেজপাতা

২ টেবিল চামচ সরিষা বাটা

দেড় টেবিল চামচ লবণ

সিকি কাপ চিনি

আধা কাপ সাদা ভিনেগার

১ কাপ সরিষার তেল

প্রণালী

১) প্রথমেই চালতা পরিষ্কার করে ধুয়ে কেটে নিন। এগুলোকে খুব অল্প পানিতে সেদ্ধ করুন, যাতে সেদ্ধ করার পর এতে কোন পানি না থাকলে। বেশী পানিতে সেদ্ধ করলে আচারটা পানসে হয়ে যাবে। চালতার ফ্লেভারটাও ভালোভাবে বোঝা যাবে না।

২) সেদ্ধ করা চালতা পাটায় বা হামানদিস্তায় থেঁতলে নিন। একটি জিপলক ব্যাগে ভরে এটাকে ভারি কিছু দিয়ে থেঁতলে নিতে পারেন, তাতে এদিক ওদিক ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা কমে যাবে, কাপড়ে দাগ হওয়ার ভয়টাও থাকবে না।

৩) একটা তাওয়ায় শুকনো টেলে নিন মরিচ এবং পাঁচফোড়ন। পাঁচফোড়ন আধাভাঙ্গা করে গুঁড়ো করে নিন। শুকনো মরিচ হাত দিয়ে ভেঙ্গে নিন।

৪) একটি পাত্রে সরিষার তেল গরম হতে দিন। মাঝারি আঁচে রাখুন। এতে একটি তেজপাতা দিন। সাথে রসুনের কোয়াগুলো দিয়ে দিন। কোয়াগুলো খোসাসহই দেবেন, নয়তো গলে যেতে পারে। এরপর এতে সরিষা বাটা এবং লবণ দিয়ে নেড়ে নিন। ফোড়ন দেবার জন্য পানি নয়, অল্প অল্প করে সাদা ভিনেগার দিতে পারেন। মশলা কষিয়ে এতে চালতা দিয়ে দিন। চালতার সাথে মশলা সব মেখে গেলে এতে পাঁচফোড়ন, মরিচ এবং চিনি দিয়ে দিন। দিয়ে ভালো করে নেড়ে নিন। যখন দেখবেন তা তেলতেলে হয়ে এসেছে তখন নামিয়ে নিন।

এই আচারে অল্প পরিমাণে চিনি দেওয়া হয় বটে কিন্তু তা মিষ্টি হবে না, বরং আচারের স্বাদটা বাড়িয়ে দেবে। টক এবং ঝাল স্বাদটাই বুঝতে পারবেন। আপনি যদি আরো বেশী ঝাল চান তাহলে মরিচের পরিমাণ বাড়িয়ে দিতে হবে।

এই আচার সপ্তাহে অন্তত ২ বার রোদে দিতে হবে। যদি মনে হয় বেশকিছুদিন হয়ে এসেছে, ছাতা পড়তে পারে তাহলে ফ্রিজে রাখুন। অবশ্যই হাত দিয়ে বা এঁটো চামচ দিয়ে এই আচার তুলবেন না। এই নিয়মগুলো মেনে চললেই আচার ভালো থাকবে অনেকদিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *