Friday , October 13 2017
Home / রাজনীতি / চীন ও রাশিয়ার ভেটো সমান : ফখরুল

চীন ও রাশিয়ার ভেটো সমান : ফখরুল

বৃহস্পতিবার জাতিসংঘে অনুষ্ঠেয় নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে রাশিয়া ও চীন যাতে রোহিঙ্গা ইস্যুতে ইতিবাচক থাকে বা কোনো কারণে ভেটো না দেয় সে ব্যাপারে কূটনৈতিক তৎপরতা চালাতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।বুধবার দুপুরে কক্সবাজারের উখিয়ায় রোহিঙ্গাদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণের পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ আহ্বান জানান বিএনপি মহাসচিব।
ফখরুল বলেন, ‘রোহিঙ্গা ইস্যুতে আমাদের কূটনৈতিক তৎপরতা অব্যাহত রাখতে হবে শুধু তা নয়, আরো জোরদার করতে হবে, যাতে করে চীন-রাশিয়া রোহিঙ্গা ইস্যুতে কোনো ধরনের ভেটো না দেয়। তারা যেন নির্যাতিত মানুষগুলোর পাশে এসে দাঁড়াতে পারে।’
 
বিএনপির মহাসচিবের নেতৃত্বে উখিয়ার বাগগুনা, বালুখালি ও থাইমখালীতে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের মধ্যে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করেন। ত্রাণসামগ্রীর মধ্যে ছিল ত্রিপল, জামা-কাপড়, হাঁড়ি-পাতিল, খাদ্যসামগ্রী, ওষুধ, টিউবওয়েল প্রভৃতি।বুধবার সকালে উখিয়া কলেজ মাঠে সেনাবাহিনীর ত্রাণ ভান্ডারে দুই ট্রাক ত্রাণসামগ্রী হস্তান্তর করেন মির্জা ফখরুল। ক্যাম্পের কর্মকর্তা মেজর রফিক এসব ত্রাণসামগ্রী গ্রহণ করেন।
 
পরে বিএনপির মহাসচিবের নেতৃত্বে বালুখালীর ঘুনধুম ক্যাম্প, থাইনখালী ও পালংখালীতে ত্রাণসামগ্রী বিতরন করা হয়। তার আগে বিএনপির সহযোগী সংগঠন ‘ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ড্যাব) আয়োজিত চিকিৎসা ক্যাম্প পরিদর্শন করেন বিএনপির মহাসচিব।এই চিকিৎসা ক্যাম্প থেকে প্রতিদিন সহস্রাধিক অসুস্থ রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ ও শিশু চিকিৎসা ও ওষুধ পাচ্ছে বলে জানানো হয়।
 
ফখরুল বলেন, ‘আমরা খুব পরিষ্কার করে বলেছি, রোহিঙ্গারা যারা এসেছে তাদের এখানে স্থায়ীভাবে বসবাসের কথা আমরা বলিনি। আমরা বলেছি সাময়িকভাবে তাদের আশ্রয় দিতে হবে, মানবিক কারণে তাদের আশ্রয় দিতে হবে।’মির্জা ফখরুল বলেন, ‘একই সঙ্গে রোহিঙ্গারা যাতে করে নাগরিকত্ব নিয়ে সসম্মানে নিজ বাসভূমিতে ফিরে যেতে পারে, সেই ব্যবস্থা অবশ্যই সরকারকে করতে হবে এবং দ্রুততার সঙ্গে তা করতে হবে।’তিনি বলেন, ‘আমরা অসহায় রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার পক্ষ থেকে সবার প্রতি আহবান জানাচ্ছি।’
 
সেনাবাহিনী দায়িত্ব নেয়ায় ত্রাণ বিতরণে সুশৃঙ্খলভাবে হচ্ছে উল্লেখ করে বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘সেনাবাহিনীকে সম্পৃক্ত করার জন্য আমরা প্রথম থেকে দাবি করে আসছিলাম। তারা দায়িত্ব গ্রহণের পর ত্রাণ বিতরণে শৃঙ্খলা ফিরে এসেছে।”এই কর্মকাণ্ডে জনবল বাড়ানো, স্বাস্থ্যসেবা বৃদ্ধি করতে এবং রোহিঙ্গাদের আশ্রয়ের জন্য অস্থায়ী ঘর তৈরির আহ্বান জানান ফখরুল।রোহিঙ্গা শরণার্থীদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করতে মঙ্গলবার বিকালে বিমানযোগে কক্সবাজার পৌঁছান বিএনপির মহাসচিব।
 
এ সময়ে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, ভাইস চেয়ারম্যান এ জেড এম জাহিদ হোসেন, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আবদুস সালাম, কেন্দ্রীয় নেতা মজিবুর রহমান সারোয়ার, ফজলুল হক মিলন, শহীদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, কামরুজ্জামান রতন, লুৎফর রহমান কাজল, মাহবুবুর রহমান শামীম, শরীফুল আলম, শহীদুল ইসলাম বাবুল, আমিরুজ্জামান খান শিমুল, শায়রুল কবির খান, উখিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সারোয়ার জাহান চৌধুরী, জেলা ছাত্র দলের সভাপতি রাশেদুল হক রাসেলসহ অঙ্গসংগঠন ও জেলা নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
 
(ঢাকাটাইমস/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *