Wednesday , March 28 2018
Home / আন্তর্জাতিক / হেল্পলাইন ১০৯ নম্বরে ফোন, অতপরঃ বন্ধ হলো বিয়ে

হেল্পলাইন ১০৯ নম্বরে ফোন, অতপরঃ বন্ধ হলো বিয়ে

শিশু বয়সেই বিয়ে অর্থাৎ, যাকে বলে বাল্যবিয়ে! হেল্পলাইন ১০৯ নম্বরে ফোন দিয়ে বাল্যবিয়ের হাত থেকে বাঁচলো নাটোরের তানিয়া খাতুন (১৬)। শিশু বয়সেই তার বিয়ে মেনে নিতে না পারায় সচেতন এক প্রতিবেশী ওই নম্বরে ফোন দিয়ে প্রশাসনকে অবহিত করায় বন্ধ হয় তানিয়ার বাল্যবিয়ে।

নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার ধারাবারিষা ইউনিয়নের দাদুয়া গ্রামের আবু তালেবের মেয়ে তানিয়া। ধারাবারিষা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এবার এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছে সে।

স্থানীয় বড়াইগ্রাম উপজেলার ভরট গ্রামের সেলিম হোসেনের ছেলে নাজমুল হোসেন সজিবের সঙ্গে তানিয়া খাতুনের বিয়ে ঠিক হয়। সোমবার ছিল বিয়ের দিন।

কিন্তু প্রতিবেশী অনেকেই ১৬ বছরের তানিয়ার বিয়ে মেনে নিতে পারেননি। তাদেরই একজন জাতীয় হেল্প লাইন ১০৯ নম্বারে ফোন দিয়ে ওই বাল্যবিয়ের খবর জানান।

মহিলা বিষয়ক অধিদফতর থেকে নির্দেশনা পেয়ে তাৎক্ষণিকভাবে জরুরি পদক্ষেপ নেন গুরুদাসপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মনির হোসেন। পুলিশ পাঠিয়ে বন্ধ করেন তানিয়ার বাল্যবিয়ে। সেসময় বাড়িতে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যান তানিয়ার বাবা।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মনির হোসেন জানান, বিয়ে বন্ধ করার পর তানিয়া ও তার চাচা আব্দুল করিমকে উপজেলা কার্যালয়ে এনে বাল্যবিয়ে না করানোর শর্তে মুচলেকা নেয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশ ও ডেনমার্ক সরকারের যৌথ উদ্যোগে পরিচালিত মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের আধীনে মাল্টিসেক্টরাল প্রোগামের আওতায় জাতীয় হেল্প লাইন ১০৯ নম্বর চালু করা হয়েছে। এ নম্বরে ফোন দিয়ে নারী বঞ্চনা বিষয়ক খবর যে কেউ মহিলা বিষয়ক অধিদফরকে জানাতে পারেন। পেতে পারেন এ বিষয়ক তথ্য ও সহযোগিতা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *